ভূতের ভয়ে ছাত্রীদের হোস্টেলে মিলাদ!

ভূত আছে কী নেই এই তর্ক চলছিল, চলছে চলবে। বিজ্ঞানের যুক্তি দিয়ে ভূতের অস্তিত্ব বিপন্ন করা একদমই উচিত হবে না কারণ তারিনি খুঁড়োর মতো গল্প বলা মানুষগুলো আমাদের সমাজ থেকে হঠাত্‍ উধাও হয়ে যাবে।কুমিল্লা নগরীর চর্থায় অবস্থিত কুমিল্লা সরকারি মহিলা কলেজ ও হোস্টেল। কলেজটির দক্ষিণে কুমিল্লা জেনারেল (সদর)

হাসপাতাল। পশ্চিম দিকের রাস্তা রাণীদিঘি হয়ে চলে গেছে কান্দিরপাড়ের দিকে। কলেজের একটু পশ্চিমেই সালাউদ্দিন মোড়। শহরের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় অবস্থিত হওয়ায় কলেজটিতে সবসময় আলো ঝলমল পরিস্থিতি বিরাজ করে। তবে বেশ কিছুদিন ধরে এই আলো ঝলমলে কলেজ হোস্টেলের মেয়েদের মধ্যে ভূত আতঙ্ক বিরাজ করছে। রাত হলে তারা অদ্ভুত শব্দ শুনতে পান। এ আওয়াজ সহজে বন্ধ হয় না।

এ অবস্থার পরিত্রাণে সোমবার (১০ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় হুজুর ডেকে হোস্টেলে মিলাদ পড়ানো হয়।খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হোস্টেলটির একটি ভবন পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে। নড়বড়ে ভবনটিতে বৃষ্টি হলে পানি ঢুকে পড়ে। বাতাস ও ভূমিকম্পে সবাই আঁতকে ওঠে। অপরদিকে, হোস্টেলের পূর্ব দিকে বখাটেদের আনাগোনা আছে। নবাব বাড়ি ও এর আশপাশে প্রায়ই প্রকাশ্যে গাঁজার আসরও বসে। এ কারণে শিক্ষার্থীরা অদ্ভুত শব্দ শুনে থাকতে পারে বলে অনেকের ধারণা।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হোস্টেলের একাধিক ছাত্রী জানান, করোনাকালে ছাত্রীরা হোস্টেলে ছিল না। তখন হোস্টেলের ভেতর থেকে অনেক ছাত্রীদের জামা-কাপড়সহ বিভিন্ন জিনিসপত্র চুরি হয়। পরে বেশ কয়েকজন ছাত্রী কলেজ অধ্যক্ষের কাছে এ সমস্যার সমাধান চেয়েছেন। তবে কিছু ছাত্রীর ধারণা, এখানে আসলেই ভূতের উৎপাত আছে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *