পরীক্ষা দিলেন মা, বাচ্চা কোলে রাখলেন উপজেলা চেয়ারম্যান

মানুষ মানুষের জন্য। জীবন জীবনের জন্য। একটু সহানুভূতি কি মানুষ পেতে পারে না ও বন্ধু….। গানের কথাগুলি কবে বাস্তবে রূপান্তরিত হবে সেই আশায় বুক বাঁধে হাজারো মানুষ।নতুন খবর হচ্ছে, সদ্য প্রসূত সন্তানকে নিয়ে দাখিল পরীক্ষা দিতে আসেন মা। কিন্তু ঘটে বিপত্তি। কিছুতেই সন্তানের কান্না থামাতে পারছেন না কিশোরী মা। এ দৃশ্য দেখে এগিয়ে এলেন রংপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান নাছিমা জামান ববি।

দেড় ঘণ্টা শিশুটিকে কোলে নিয়ে মাতৃস্নেহে আগলে রাখেন তিনি।রোববার (১৪ নভেম্বর) রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার শঠিবাড়ী আলিম মাদরাসা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। নাছিমা জামান ববি ওই মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও কেন্দ্র সচিব।ওই পরীক্ষার্থী মিঠাপুকুর উপজেলার বড় হযরতপুর ইউনিয়নের মাঝগ্রাম দাখিল মাদরাসার ছাত্রী।পরে তিনি

শিশুটিকে কোলে নিয়ে একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শেয়ার করেন। সেখানে তিনি লিখেন— ‘এক ছাত্রী মাত্র ৩৫ দিনের বাচ্চাকে নিয়ে পরীক্ষা দিতে চলে এসেছিল। পড়াশোনায় তার আগ্রহে আমি অভিভূত। থাক না দেড় ঘণ্টা বাবুটা আমাদের কাছে।’

আরও পড়ুন= বাংলাদেশের ফুটবলের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র তপু বর্মণ। এই পর্যন্ত অনেক রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন এই তারকা ফুটবলার।নতুন খবর হচ্ছে, কলম্বোতে চলমান মাহিন্দা রাজাপক্ষে টুর্নামেন্টে মালদ্বীপকে ২-১ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এর মাধ্যমে দীর্ঘ ১৮ বছর পর মালদ্বীপের বিপক্ষে জয় এলো। ১-১ গোলে সমতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল ম্যাচটি। ৮৮ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে বাংলাদেশকে জয় এনে দেন ডিফেন্ডার তপু বর্মণ। পরিসংখ্যান বলছে, তপু বর্মণ গোল করলে বাংলাদেশ সেই ম্যাচে হারে না! ২৬ বছর বয়সী এই সেন্টারব্যাক ৪৩ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৬টি।

তপু বর্মণের মূল দায়িত্ব গোল করা নয়। প্রতিপক্ষের আক্রমণ সামলানো। কিন্তু ডিফেন্ডার হয়েও তিনি দলের প্রয়োজনে গোল করার পথটা চিনে নিয়েছেন। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, আন্তর্জাতিক মঞ্চে দল এখন তাকিয়ে থাকে তপু বর্মণের দিকে। এমনিতেই আন্তর্জাতিক ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পায় কালেভদ্রে। আর গোল পাওয়া তো স্বপ্নের মতো ব্যাপার। তপুর সৌজন্যে ৬টি গোল পাওয়াটাও বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে বড় ঘটনা। তপু তাই ম্যাচ শেষে বলেছেন, ‘আমি গোল করলে বাংলাদেশ হারে না।’

তপুর কথার সত্যতা প্রমাণ করছে পরিসংখ্যান। তার ৬ গোলের ম্যাচগুলোতে ৫টি জিতেছে বাংলাদেশ। একটি ড্র হয়েছে। তপুর প্রথম গোলটি ছিল ২০১৫ সালে কেরালা সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ভুটানের বিপক্ষে। ম্যাচটিতে ৩-০ গোলে জিতেছিল বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *