উগান্ডায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ইসলামি শরিয়াহ আইন

উগান্ডায় প্রচলিত আইন থেকে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ইসলামি শ’রিয়াহ আইন। সাফিনা নামুকোসে (৩০) নামে এক মুসলিম নারীকে তার তিন সন্তানসহ ফেলে রেখে স্বামী আরেকটি বিয়ে করেন।

এ ব্যাপারে তিনি থানায় মা’মলাও করেন। খবর আনাদোলুর। কিন্তু পুলিশ ঘুস খেয়ে তার স্বামীকে আটক করছিল না। কয়েক মাস ধরে তিনি থানা পুলিশের কাছে ধরনা দিয়ে ক্লান্ত হয়ে শেষ পর্যন্ত শরিয়াহ আদালতের দ্বারস্ত হন।

এতে সঙ্গে সঙ্গেই কাজ হয়। স্বামী এসে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়ে সন্তানসহ প্রথম স্ত্রীর ভরণপোষণের দায়িত্ব নেন। সাফিনার মতো অনেকেই এখন ভরসা করছেন ইসলামি আদালতে। ১৯৯৫ সাল থেকে উগান্ডায় সাংবিধানিক আইন চালু হয়। দেশটির চার কোটি ৬০ লাখ মোট

জনসংখ্যার ১৩ শ’তাংশ মুসলিম। ২০১৯ সালে দেশটিতে শরিয়াহ আইন চালু হয়। প্রতিটি জেলায় গঠন করা হয় ইসলামি আদালত। এর পর থেকেই প্রচলিত আলাদতের চেয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে শরিয়াহ আদালত। গত তিন মাসে কেবল বুগিরি জে’লাতেই শরিয়া আদালত

১৪০ মামলা ‘নিষ্পত্তি ক’রেছেন। ওই জেলায় সবচেয়ে বেশি মুসলিমদের বসবাস। উগান্ডার মুসলিম সুপ্রিম কাউন্সিলের মুখপাত্র আশরাফ মুভাওয়ালা বলেন, দিন দিন এখানে শরিয়াহ বিচারব্যবস্থা জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

বর্তমানে আমাদের শরিয়াহ আ’দালতের বিচারকরা বেশ ব্যস্ত বিচারকাজ নিয়ে। প্রতিদিনই নতুন নতুন মামলা হচ্ছে শরিয়াহ আদালতে। মানুষের আস্থা এই আদালতের প্রতি দিন দিন যে বেড়ে চলেছে এ থেকেই তা প্রমাণ হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *