‘তালেবানের’ সঙ্গে সম্পৃক্ততা ব্যর্থ হলে ২০ বছর পিছিয়ে যেতে পারে: ইমরান খান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সোমবার আবারও আন্তর্জাতিক সম্প্র’দায়ের তা’লেবানের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়ে বলেন যে, এটি করতে ব্যর্থ হলে দেশটি ২০ বছর পিছিয়ে যেতে পারে। মিডল ইস্ট আইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক, অ’ধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় পদক্ষেপ এবং উই’”ঘুরদের প্রতি আচরণ নিয়ে চীনের বিরুদ্ধে

অভিযোগসহ বিস্তৃত বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। আফগানিস্তানে তা’লেবান সরকারের সঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সম্পৃক্ততার ওপর জোর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, ২০ বছরের গৃহযুদ্ধ দেশকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তিনি বলেন যে, এত বছর পর, তালেবান সদস্যরা যারা আত্মত্যাগ করেছে তারা সরকারের অধীনে পুরস্কৃত হতে চায়। ইমরান বলেন, ‘তবুও, তালেবান সরকার স্পষ্টভাবে আ’ন্তর্জাতিক গ্র’হণযোগ্যতা পাওয়ার

চেষ্টা করছে তাই এটি একটি অন্ত’র্ভুক্তিমূলক সরকার চায়, মানবাধিকার নিয়ে কথা বলে এবং তার মাটি কাউকে সন্ত্রাসবাদের জন্য ব্যবহার করতে না দেয়।’ তিনি বলেন, বিশ্বকে অবশ্যই আফগানিস্তানের সাথে জড়িত থাকতে হবে।’ তিনি তা না করার পরিণতি সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছিলেন। ‘গোষ্ঠীর মধ্যে অবশ্যই কট্টরপন্থী থাকতে পারে এবং তারা সহজেই ২০ বছর আগের তালেবানদের কাছে ফিরে যেতে পারে। এবং এটি একটি বি’পর্যয় হবে।’ তিনি বলেন, যদি আফগানিস্তান আবারও বিশৃঙ্খলায় নেমে আসে, তাহলে এটি

আইএসআইএস -এর মতো স’ন্ত্রাসীদের জন্য একটি উর্বর ভূমিতে পরিণত হবে, যা এই অঞ্চলের সকল দেশের জন্য উদ্বেগের বিষয়। আফগানিস্তানে বিচ্ছিন্ন ও নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফলে ব্যাপক মানবিক সংকট দেখা দেবে। তালেবান ক্ষমতায় আসার বিষয়ে পাকিস্তানের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে ইমরান বলেন, ‘আমরা এতটাই স্বস্তি পেয়েছি কারণ আমরা রক্তপাতের আশঙ্কা করেছিলাম। এটা ছিল শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা

হস্তান্তর। আইএস-এর বি’রুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তিনি পাকিস্তানে মার্কিন ঘাঁটিগুলোকে অনুমতি দেবেন কিনা জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, ‘আমি মনে করি তাদের এখানে ঘাঁটির প্রয়োজন নেই কারণ আমরা আবার সংঘর্ষে অংশ নিতে চাই না।’ তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন ‘স’ন্ত্রা’সবিরোধী যু’দ্ধে’ যোগ দিয়ে কোনো দেশই পাকিস্তানের মতো ভারী মূল্য পরিশোধ করেনি, কিন্তু দেশটিকে বলিদান দেয়া হচ্ছে বলে শোক

প্রকাশ করেছেন। পাকিস্তান ও চীনের সম্পর্কের বর্ণনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, সম্পর্কটি ৭০ বছরের পুরনো এবং এটি ‘সময়ের পরী’ক্ষায় দাঁড়িয়েছিল’। তিনি বলেন, ‘আমাদের সকল উত্থান -পতনে চীন আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, চীন সঙ্কটের মুহূর্তে পাকিস্তানকে সাহায্য করেছিল। চীনে উই’ঘুরদের প্রতি আচরণের বিষয়ে তার নীরবতা স’ম্পর্কে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন যে তিনি ‘মা:নবাধিকারের বিষয়ে নির্বাচনী ঘোষণা’ অ’নৈতিক বলে মনে করেন।

অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় ক’র্মকাণ্ডের সমালোচনা বা মুসলিম ও সংখ্যালঘুদের সঙ্গে তার আচরণ নিয়ে কেন সমালোচনা করা হয়নি, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, উইঘুর ইস্যুতে পাকিস্তান চীনের সঙ্গে কথা বলেছে এবং তার ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। ‘চীনের সাথে আমাদের স:ম্পর্ক এমন যে আমাদের মধ্যে একটি বোঝাপড়া আছে। আমরা একে অপরের সাথে

কথা বলব, কিন্তু বন্ধ দরজার পিছনে কারণ এটি তাদের প্রকৃতি এবং সংস্কৃতি।’ তিনি বলেন, মুসলিম বিশ্ব অশান্তির শিকার এবং সরকার কা’শ্মীর ইস্যু এবং অধিকৃত উপত্যকায় মা’নবাধিকার ‘লঙ্ঘন তুলে ধরতে চায়। ইসরায়েল কর্তৃক ফিলিস্তিনিদের সাথে কী আচরণ করা হয়েছে এবং এটি ভারতকে ‘টেমপ্লেট’ দিয়েছে কিনা সে বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে. দুটি দেশ খুব কাছাকাছি ছিল। তিনি উল্লেখ করেন

যে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তার ইসরাইল সফরের পর ৫ আগস্ট, ২০১৯ -এ অধিকৃত কাশ্মীরের বিশেষ অধিকার বাতিল ক:রেন। তিনি বলেন, ‘আমরা কি মনে করি সে সেখান থেকে তার নির্দেশ পেয়েছে? কারণ ইসরাইল সেটাই করেছে। তারা এমন একটি শক্তিশালী নিরাপত্তা যন্ত্র তৈরি করেছে এবং যেকোন কিছুকে চূর্ণ করে দিয়েছে। তারা মানুষকে পাঠাবে এবং হত্যা করবে।’ ইমরান খান ইস’রাইলকে স্বীকৃতি দেয়ার

জন্য উপসাগরীয় দেশগুলোর কোনো চাপ থাকার কথা অস্বীকার করেন এবং বলেন যে, পাকিস্তান একটি গণতান্ত্রিক দেশ যা, জনগণকে সাথে না নিয়ে কোনো একতরফা সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী ইমরানকে নভেম্বর মাসে নির্ধারিত পাকিস্তান সফর বাতিল করার ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকে’ট বোর্ডের (ইসিবি) সিদ্ধান্তের বিষয়ে তার প্রতিক্রিয়া সম্পর্কেও জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল। তিনি বলেছিলেন যে, তিনি ক’য়েক বছর ধরে পাক-

ইংল্যান্ড ক্রিকেট সম্পর্কের ‘বিবর্তন পর্যবেক্ষণ করেছেন। তিনি বলেন, ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের ক্ষমতা এবং আর্থিক সম্পদের কারণে কেউ ‘ভারতের সাথে এমন করার সাহস করবে না’। ‘আমি কিছু বলিনি, কিন্তু আমি মনে করি ইংল্যান্ড নি’জেদেরকে হতাশ করেছে

‘কারণ আমি তাদের কাছ থেকে একটু বেশি আশা করেছিলাম।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যা জানি তা হলো, ইংল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলগুলো সিঙ্গাপুরের মাধ্যমে কিছু ভারতীয় দ্বা’রা প্রচারিত ভুয়া খবরের ভিত্তিতে সফর বাতিল করে নিজেদেরকে হতাশ করেছিল।’ সূত্র: ডন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *