ভাবির মোবাইলে প্রেম, বিয়ের আশ্বাসে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণ

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলায় বিয়ের আশ্বাসে এক মাদ্রাসাছাত্রীকে (১৪) একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মো. মিজান ওরফে রাসেল নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মো. মিজানকে আসামি করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

মিজান জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার নিলক্ষীয়া গ্রামের ফরহাদ হোসেনের ছেলে। সে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার পালাখাল এলাকায় একটি গ্যারেজে শ্রমিকের কাজ করেন। এর আগে ৯ সেপ্টেম্বর স্থানীয় মাদ্রাসার সামনে থেকে ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে হাজীগঞ্জের পালাখাল এলাকায় একাধিকবার ধর্ষণ করা হয়েছে বলে তার মা থানায় মামলা করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রীর ভাবির মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মিজানের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত ৯ সেপ্টেম্বর ওই ছাত্রীকে মাদ্রাসার ফটকের সামনে থেকে বিয়ের আশ্বাসে হাজীগঞ্জের পালাখাল এলাকায় তার (মিজান) বাসায় নিয়ে যান।

এ সময় ওই ছাত্রীকে তার বাসায় নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। ১২ সেপ্টেম্বর পরিবারের লোকজন ছাত্রীর অবস্থানের কথা জানতে পারেন। ওই দিন ছাত্রীর মা তার মেয়েকে আনার জন্য পালাখাল এলাকায় ওই যুবকের বাসায় যান।

সেখানে গিয়ে মেয়ের মাধ্যমে জানতে পারেন বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে মিজান। মিজান আগেও একটি বিয়ে করেছে বলে জানতে পারে ভুক্তভোগীর পরিবার। অনেক কৌশল করে সেখান থেকে গত ২৪ সেপ্টেম্বর দুপুরে মেয়েটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন তার মা।

মতলব দক্ষিণ থানার ওসি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া জানান, মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর এলাকা থেকে ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ছাত্রীকে দুপুরে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। আসামিকে বিজ্ঞআদালতে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *