মিয়ানমারে আন্দোলন দমনে শিশুদেরও তুলে নিয়ে যাচ্ছে সেনারা

মিয়ানমারে গ’ণতন্ত্রকামীদের আন্দো’লন দমনে জান্তা সরকারের গ্রে’ফতার অ’ভিযান চলছেই। তাদের সন্দেহভাজন কাউকে গ্রে’ফতার করতে না পারলে ওই ব্যক্তির পরিবারের অন্য সদস্য এবং আত্মীয়-স্বজনকেও তুলে নিয়ে যাচ্ছে সেনারা।

এমনকি ২০ সপ্তাহ বয়সী শিশু জান্তা সরকারের এই হীন কর্মকাণ্ড থেকে রেহাই পাচ্ছে না। দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ দূত টম অ্যান্ড্রুজের বরাতে বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) ব্রি’টিশ সংবাদমাধ্যম দ্য
গার্ডিয়ান এ খবর জানিয়েছে। টম অ্যান্ড্রুজ বুধবার জাতিসংঘের মানবাধিকার কা’উন্সিলকে জানিয়েছেন,

মিয়ানমারের পরিস্থিতি ক্র’মাগত অবনতি হচ্ছে। এমনকি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যে সব পদক্ষেপ গ্রহণ করছে তাও কোনো কাজে আসছে না দেশটিতে। বিজ্ঞাপন তিনি বলেন, জান্তা সরকার অ’ভিযুক্তদের ধরতে না পেরে প্রতিনিয়ত তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের অপহরণ করছে। বিশ্বা’সযোগ্য সূ’ত্রের বরাত দিয়ে তিনি বলেন

মূল অভিযুক্তকে গ্রে’ফতারে ব্যর্থ হয়ে এখন পর্যন্ত কমপক্ষে ১৭৭ জনকে আ’টক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ২০ সপ্তাহ বয়সী শিশুও রয়েছে। সামরিক জান্তা দেশটিতে এখন পর্যন্ত শিশুসহ কমপক্ষে এক হাজার ১০০-এর বেশি মা”নুষকে হ’ত্যা করেছে। জুলাই পর্যন্ত

১৪ মাস থেকে ১৭ বছর বয়সী কমপক্ষে ৭৫ শিশুকে হত্যা করেছে তারা। তাই মিয়ানমারে মা”নবাধিকার ল’ঙ্ঘন ও মৃ’ত্যু এড়াতে প’দক্ষেপ নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বা’ন জানিয়েছেন তিন। বিজ্ঞাপন

জান্তা সরকার ক্ষমতায় আসার পর কমপক্ষে আট হাজার মানুষকে গ্রে’ফতার করেছে। যারাই তাদের শাসনের বিরু দ্ধে বি’ক্ষোভ করেছে তাদেরই

গ্রে”ফতার করেছে। বাদ যায়নি নি’র্বাচিত জনপ্রতিনিধি, চিকিৎসক, সাংবাদিকরাও। মিয়ানমারে এখন পর্যন্ত দুই লাখ ৩০ হাজারের বেশি বেসামরিক নাগরিক গৃহহীন হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *