আফগান আইএস-এ যোগ দিয়েছে ১৪ ভারতীয়, দুশ্চিন্তায় ভারত

আফগানিস্তানে ক্ষমতা দখলের সময় জেল থেকে কয়েদীদের মুক্তি দিয়েছিল তালিবান। সেই সময় বাঘরাম জেল থেকে বেরিয়ে আসে অন্তত ১৪ জন ইসলামিক স্টেট অব খোরাসান বা আইএসকে’র সদস্য। জানা যায়, বেরিয়ে আসা সেই ১৪ জন কয়েদী ভারতের কেরালার নাগরিক। ফলে ভারত জুড়ে বেড়েছে দুশ্চিন্তা।

ভারতের দৈনিক পত্রিকা আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, গত ২৬ আগস্ট কাবুলের তুর্কমেনিস্তান দূতাবাসের সামনে বোমা রাখতে গিয়ে ধরা পড়ে দুই পাকিস্তানি। এই দু’জনই আইএস-কের সদস্য। এদের সঙ্গে কেরালার ওই আইএস-কে সদস্যদের যোগাযোগ ছিল বলে জানা গেছে। কাবুলের তুর্কমেনিস্তান দূতাবাসে বোমা রাখতে গিয়ে ধরা পড়া দুই পাক নাগরিক এবং কেরালার ওই ১৪ জনের যোগ রয়েছে বলে নিশ্চিত গোয়েন্দারা। তালিবানের তরফে অবশ্য এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

তবে আভ্যন্তরীণ সূত্র মতে, কাবুলের দায়িত্বপ্রাপ্ত হাক্কানি নেটওয়ার্কের মূল কেন্দ্র আফগানিস্তানের নানগরহর প্রদেশ আইএস-কেরও শক্ত ঘাঁটি। ফলে হাক্কানি নেটওয়ার্কের সহযোগিতা নিয়ে আইএস-কে ধারাবাহিক বিস্ফোরণের ছক কষেছে কি না তা নিয়ে বড়সড় প্রশ্ন উঠে গিয়েছে।

পাশাপাশি এই খবরে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাথাব্যথা বেড়েছে। কারণ অশান্ত আফগানিস্তানে হিংসার ঘটনায় কেরালার নাম জড়িয়ে গেলে আন্তর্জাতিকভাবে বেকায়দায় পড়ার সম্ভাবনা প্রবল। ভারতের কাছে তা মোটেও কাম্য নয়। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, বাগরাম থেকে মুক্তি পাওয়া ১৪ জন কেরালার বাসিন্দার মধ্যে এক জন বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। সেই সূত্রেই তাদের সম্পর্কে জানতে পারেন তদন্তকারীরা।

জানা গেছে, ২০১৪ সালে আইএস-এর মসুল দখলের পর কেরালার মল্লপুরম, কাসারগোদ ও কান্নুর জেলা থেকে বেশ কয়েক জন দেশ ছাড়ে। যোগ দেয় আইএস-এ। তাদের মধ্যে কয়েক জন মধ্য-পূর্ব ছেড়ে চলে আসেন আইএস-কের শক্ত ঘাঁটি বলে পরিচিত আফগানিস্তানের নানগরহর প্রদেশে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *