কাবুল বিমানবন্দরে হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বাইরে দুটি আত্মঘাতী হামলার দায় স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ইসলামিক স্টেট খোরাসানের (আইএস-কে) পক্ষ থেকে বলা হয়, মার্কিন সেনাসহ তাঁদের সহযোগী ও অনুবাদক আফগানদের লক্ষ্য করে আইএসের একজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী এ হামলা পরিচালনা করেছে।

আইএস-কে’র বার্তায় বলা হয়, ‘হামলাকারী কাবুল বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন সামরিক বাহিনীর বরন ক্যাম্পের নিকটবর্তী এলাকায় আফগান অনুবাদক ও সহযোগীদের ভিড় পর্যন্ত পৌঁছাতে সক্ষম হয় এবং সে সেখানে বিস্ফোরক বেল্ট কার্যকর করে। এতে তালেবান যোদ্ধাসহ ৬০ জন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়।’

এদিকে, কাবুলে হামলা হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন হামলাকারীদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আমরা ক্ষমা করব না, আমরা এটা ভুলব না। আমরা তোমাদের অবশ্যই খুঁজে বের করব এবং প্রাপ্য শাস্তিটাই দেব।’ বাইডেন বলেন, ‘হামলার নির্দেশদাতার ব্যাপারে আমরা তথ্য পেয়েছিলাম। তবে তা নিশ্চিত কিছু ছিল না।’

বৃহস্পতিবারের জোড়া বোমা বিস্ফোরণ ও গুলিবর্ষণে ৬০ জন আফগান নাগরিক এবং ১৩ জন মার্কিন সেনা নিহত হয়। এ ঘটনায় আরও অন্তত ১৪০ জন আহত হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র এর আগেই কাবুল বিমানবন্দর এলাকায় আইএসের হামলার আশঙ্কার কথা জানিয়েছিল। এদিকে, তালেবান জানিয়েছে, কয়েকদিন আগে তারা বিমানবন্দর এলাকা থেকে এক জন আইএস যোদ্ধাকে আটক করেছিল। জিজ্ঞাসাবাদে সে এ ধরনের হামলার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিল। এজন্যই বিমানবন্দরসংলগ্ন এলাকায় জনসমাগমে নিরুৎসাহিত করা হয়েছিল।

তালেবানের সঙ্গে আইএস-কে অর্থাৎ আফগানিস্তানে কার্যক্রম পরিচালনাকারী ইসলামিক স্টেটের শত্রুতা রয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের শেষ সময়ে তালেবানের কাবুল দখলের পর সৃষ্ট পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে কাবুল বিমানবন্দরের সামনের এই হামলা চালিয়েছে গোষ্ঠীটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *