আফগানিস্তানে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা থাকবে না: তালেবান

শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে আ’ফগানিস্তানের ক্ষমতা গ্রহণ করতে যাচ্ছে তালেবান সরকার। কিন্তু তারা কীভাবে দেশ পরিচালনা করবে সে ব্যাপারে অনেক বিষয় এখনো

চূড়ান্ত হয়নি। তবে গোষ্ঠীটির সিনিয়র সদস্য ওয়াহিদুল্লাহ হাশিমি বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, আফগানিস্তানে গণতন্ত্র থাকবে না। এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা জানান। ওয়া’হিদুল্লাহ হাশিমি বলেন, এখানে

কোনো গণ’তান্ত্রিক ব্যবস্থা থাকবে না। কারণ, আমাদের দেশে এর কোনো ভিত্তি নেই। আফগানিস্তানে আমাদের কোন ধরনের রাজনৈতিক ব্যবস্থা প্রয়োগ করা উচিত, তা নিয়ে আমরা আলোচনা করবো না। কারণ, এটি স্পষ্ট।

এটা শরিয়া আইন এবং এটাই। হাশিমি আরও বলেন, চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে তালেবান নেতৃত্বের একটি বৈঠক অনু’ষ্ঠিত হবে। যেখানে শাসন পরিচালনার বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হবে। ওই বৈঠকে তিনি

যোগ দেবেন। এ সম’য় তিনি জানান, একটি শাসক পরিষদ দ্বারা সরকার পরিচালিত হবে। আর সেই পরিষদের সামগ্রিক নেতৃ’ত্বে থাকতে পারেন তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হা’য়বাতুল্লাহ আখন্দজাদা।

রয়টার্স বলছে, হা’শিমি ক্ষমতার যে কাঠামোটি তুলে ধরেছেন তার সঙ্গে তালেবানরা আফগানিস্তানে শেষবারের মতো (১৯৯৬-২০০১) যখন ক্ষমতায় ছিল সেটির সঙ্গে মিল থাকবে। সে সময় গো’ষ্ঠীটির সর্বোচ্চ নেতা মোল্লা

ওমর ছায়ায় থেকে গেলেন এবং দেশটির প্রতিদিনের কাজকর্ম একটি কাউ’ন্সিলের ওপর ছেড়ে দিলেন। তারাই সরকার পরিচালনা করতেন। ওয়া’হিদুল্লাহ হাশিমি বলেন,

হায়বাতুল্লাহ আ’খন্দজাদা সম্ভবত কাউন্সিলের প্রধানের উপরে ভূমিকা পালন করবেন, যিনি দেশের প্রেসিডেন্টের সমতুল্য হবেন। হয়তো তার ডেপুটিদের মধ্যে একজন প্রেসিডেন্টের ভূমিকা পালন করবেন।সূত্র: ইত্তেফাক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *