ফ্রান্সের গির্জায় ছিল হাজার হাজার ‘যৌন’ ‘নিপীড়ক’ পাদ্রী ও যাজক

ফ্রান্সে ১৯৫০-এর দশক থেকে রোমান ক্যাথলিক চার্চে যৌ’ন নি’র্যাতনের ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিশনের প্রধান বলেছেন, সে সময় হাজার হাজার শিশু নি’র্যাত’নকারী তৎপর ছিল। জঁ-মার্ক সোভ ফরাসি বার্তা সংস্থাকে জানিয়েছেন, দুই হাজার নয়শ’ থেকে তিন হাজার দুইশ’ শিশু নি’র্যাতনকারী পাদ্রী

ও অন্যান্য যাজকদের বি’রুদ্ধে প্রমাণ সংগ্রহ করেছেন তারা। তিনি বলছেন, ‘এটি হচ্ছে ন্যূনতম অনুমান।’ মোট এক লাখ ১৫ হাজার জন পা’দ্রী এবং গির্জার অন্যান্য ক’র্মকর্তাদের ব্যাপারে তদন্ত চালানো হয়। রিপোর্টটি তৈরি হয়েছে চার্চ, আদালত ও পুলিশের

দলিলপত্রের আর্কাইভে পাওয়া তথ্য এবং যৌ’ন নি’র্যা’তনের শি’কারদের সাক্ষাৎকারের ওপর ভিত্তি করে। আগামী মঙ্গলবার এই তদন্তের চুড়ান্ত প্রতিবেদন পেশ করা হবে। রিপোর্টটি হবে আড়াই হাজার পৃষ্ঠার। যৌ’ন নি’র্যাতনের একজন ভু’ক্তভোগী বলেছেন, এর ফল হবে বো’মা

ফা’টার মতো। বিভিন্ন দেশে কয়েকটি কেলেঙ্কারির ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর ফ’রাসি ক্যাথলিক গির্জা কর্তৃপক্ষ ২০১৮ সালে ওই তদন্তের আদেশ দেয়। কমিশনের সদস্যদের মধ্যে ছিলেন ডাক্তার, ইতিহাসবিদ,

সমাজবিজ্ঞানী ও ধ’র্মতত্ত্ববিদরা। আড়াই বছরের মধ্যে সাড়ে ছয় হাজারেরও বেশি সাক্ষীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। রোমান ক্যাথলিক প্রকাশনা দ্য ট্যা’বলেটের ক্রিস্টোফার ল্যাম্ব বলেছেন, এই যৌন কেলেঙ্কারি ক্যাথলিক চার্চকে গত ৫০০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে

বড় ‘সংকটে ফেলে দিয়েছিল। এর ধারাবাহিকতায় পোপ ফ্রান্স এ বছরই ক্যাথলিক চার্চের নিয়’মকানুনে সংশোধনী আনেন, যাতে যৌন নিপীড়ন, শিশুদের ওপর যৌ’ন নির্যাতন, শিশু প’র্নো’গ্রাফি এবং এসব ঘটনা চাপা

দেওয়ার চেষ্টাকে স্পষ্টভাবে অপ’রাধ হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়। ফরাসি তদন্ত কমিশনের প্রধান জঁ-মার্ক সোভ বলেছেন, তার প্যানেল এমন ২২টি ঘটনার তথ্যপ্রমাণ কৌঁসুলিদের হাতে তুলে দিয়েছে যেগুলোর ব্যাপারে এখনও ফৌজদারি পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব। সূত্র: বিবিসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *