সুষ্ঠু ভোট হলে আ. লীগ ৩০ আসনও পাবে না : মির্জা ফখরুল

দেশে সুষ্ঠু ভোট হলে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৩০টি আসনও পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগের কোনো জনসমর্থন নেই। রাজনৈতিকভাবে তারা দেউলিয়া হয়ে গেছে। তারা জানে দেশে যদি একটা সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, তাতে তারা ৩০টি আসনও পাবে না। এ কারণে তারা সব রাষ্ট্রযন্ত্রকে দলীয়করণ করছে। বিচার বিভাগ, প্রশাসন এমনকি গণমাধ্যমকেও নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছে।শনিবার (২ অক্টোবর) রাজধানীর রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপি আয়োজিত ‘২০০১ সালের ১ অক্টোবর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে সর্বশেষ নিরপেক্ষ নির্বাচন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভায় উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, স্লোগান দিয়ে আন্দোলন হবে না। আন্দোলনের জন্য তৈরি হতে হবে, প্রস্তুত হতে হবে। এখানে যারা তরুণ আছে, তাদের অনেকের আন্দোলন সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নেই। এখানে খায়রুল কবির খোকন, আমান উল্লাহ আমনরা যারা আছেন তারা জানেন কীভাবে আন্দোলন করতে হয়। সেটাকে মাথায় রেখে আমাদের সবগুলো সংগঠনকে সেভাবে তৈরি করতে হবে।তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ বলে বিএনপি নাকি হরতাল ও জ্বালা-পোড়া পার্টি। আরে হরতাল, জ্বালা-পোড়ায় আওয়ামী লীগের যে রেকর্ড তা কেউ কোনো দিন অতিক্রম করতে পারবে না। ১৭৩ দিন হরতাল দিয়েছে। মানুষ পুড়ে মেরেছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ সন্ত্রাস করে ক্ষমতায় এসেছে এবং সন্ত্রাসের মাধ্যমে ক্ষমতাকে দখল করে আছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের কথা পরিষ্কার, নির্বাচন-নির্বাচন খেলা আর হবে না। নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই নির্বাচন হতে হবে। নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় নির্বাচন হতে হবে। আপনাদের দিন ঘনিয়ে এসেছে, দিন শেষ। এখন সময় আছে মানুষের ভাষা পড়েন, দেয়ালের লিখনগুলো দেখেন। তত্বাবধায়ক সরকারের বিধান করে সরে যান। জনগণকে তাদের ভোটের অধিকার প্রয়োগ করতে দিন।বিএনপি মহাসচিব বলেন, শেষ কথা আমরা কোনো নির্বাচন মনে নেব না যদি নিরপেক্ষকালীন সময়ে নিরপেক্ষ সরকার না থাকে। তাই আসুন, আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হই এবং এই দানবকে সরিয়ে দেই। শত্রু মুক্ত বাংলাদেশ ও গণতন্ত্র সৃষ্টি করি।

দেশের গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার আহ্বান জানান তিনি বলেন, আমাদের দায় আছে, বিএনপিকে এ দায় বহন করতে হবে। সুশৃঙ্খলভাবে মাঠ বোঝাই করবেন, যখন আন্দোলনের ডাক আসবে। তখন রাস্তা বোঝাই করবেন, মাঠ বোঝাই করবেন। আন্দোলন ছাড়া এ দানবকে সরানো যাবে না। সব জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে গণঅভ্যুত্থান ঘটাতে হবে।খালেদা জিয়া উড়ে এসে নয় ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব বলেন, নিজের চেহারার দিকে দেখুন। খালেদা জিয়া উড়ে এসে জুড়ে বসেননি। জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। যখনই তিনি প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, সিধা পথে, বাঁকা পথে আসেননি।পেছনের পথ দিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে বলে দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, মঈন-ফখরুদ্দিনের সঙ্গে সন্ধি করে ক্ষমতায় এসেছেন। এ কথা দেশের মানুষ জানে। এখনও শুধু গণতন্ত্রের জন্য অসুস্থ শরীর নিয়ে খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দি হয়ে আছেন। তারেক রহমান মিথ্যা মামলায় আট হাজার মাইল দূরে নির্বাসিত অবস্থায় আছেন।

বিএনপির মহাসচিব অভিযোগ করেন, বাংলাদেশের যারা শত্রু, এ দেশে যারা গণতন্ত্র চায় না। ২০০১ সালের নির্বাচিত সরকারকে কীভাবে ক্ষমতা থেকে নামানো যায়, সব অপচেষ্টা শত্রুরা করেছে।প্রধান নির্বাচন কমিশনারের রাশিয়া সফর প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি (সিইসি) কিছুদিন আগে রাশিয়া সফর করেছেন। ওই দেশেরও আমাদের মতো অবস্থা। যে থাকে সরকারে সে হয় প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশের সঙ্গে কোনো পার্থক্য নেই। দিনের বেলায় কীভাবে ভোট চুরি করা যায়, সেটা তিনি দেখে এসেছেন। কিছুদিন পর তার মেয়াদ শেষ হচ্ছে, এখন ভালো কথা বেরোচ্ছে।

তিনি সভায় জানান, আলোচনা সভার প্রধান অতিথি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন অত্যন্ত জরুরি কাজে থাকায় আসতে পারেননি।আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, অর্থনীতিবিদ ড. মাহবুব উল্লাহ, অধ্যাপক দিলারা চৌধুরীসহ অনেকে বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *