আফগান মেয়েদের বিদ্যালয় থেকে নিষিদ্ধের দাবি অস্বীকার করল ‘তালেবান’

আফগান নারীদের মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে নিষিদ্ধ করার দাবি অস্বীকার করেছে তালেবান। সম্প্রতি কেবল ছেলেদেরকে স্কুলে ফেরার নির্দেশ দেয় তারা। দেশটির ছাত্রীদেরকে ক্লাসরুমে ফে’রার অনুমতি দেওয়ার আগে তাদের জন্য “নি’রাপদ পরিবহন ব্যবস্থা” চালু করতে

হবে, জানায় দলটি। তা’লেবান শিক্ষা মন্ত্রণালয় আফগানিস্তানের ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ও শিক্ষকদের শনিবার থেকে শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর নির্দেশ দিয়েছে। শুক্রবার জা’রি করা এই ঘোষণায় নারী

শিক্ষার্থীদের কথা উ’ল্লেখ করা হয়নি। ফলে, এবারও দেশটির মেয়েদের মাধ্যমিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ পর্যন্ত তালেবান সর্বশেষ ক্ষম’তায় থাকাকালে তারা

নারীদেরকে শিক্ষা ও কর্ম’ক্ষেত্র থেকে নিষিদ্ধ করে। সেই সাথে তাদের অধিকারও কঠোরভাবে সীমাবদ্ধ করা হয়। তালেবান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ উল্লেখ করেন, অন্যান্য বয়সের নারী’দের পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার

অনুমতি দেওয়া হয়েছে। “মে’য়েরা বেসরকারি এবং সরকারী অর্থায়িত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা চালিয়ে যাও’য়ার জন্য প্রয়োজনীয়

পদক্ষেপ নিচ্ছি আমরা। তা’লেবান নেতারা এর আগে বেশ কয়েকবার নারীর অধিকারকে সম্মান করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। প্রকাশ্যে জোর দিয়ে তারা বলেছিলেন, নারীরা সমাজে বি’শিষ্ট ভূমিকা পালন

করবে এবং শিক্ষার সুযোগ পাবে। এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ে নারী’দেরকে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে শ্রেণীকক্ষে

নারী ও পুরুষ ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা বসার নিয়ম বাধ্যতামূলক করেছে তালেবান। তাছাড়া, ছাত্রী এবং নারী প্রভাষক ও কর্মচা’রীদের অবশ্যই শরিয়া আইন বিষয়ে দলটির নিজস্ব ব্যাখ্যা অনুযায়ী হিজাব পরতে হবে। সূত্র: সিএনএন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *