দুর্নীতিগ্রস্ত ঘানির পক্ষে যুদ্ধ করেনি আফগান সেনাবাহিনী:ইমরান খান

আফগানিস্তানের ক্ষম’তাচ্যুত প্রেসিডেন্ট আশরাফ গণির সরকার ছিল দু’র্নীতিগ্রস্ত। তাই তাকে রক্ষার জন্য তালেবানদের বি’রুদ্ধে যু’দ্ধ করেনি দেশটির সেনাবাহিনী। বৃহস্পতিবার নিজের ক্ষমতার তিন বছরের অর্জন নিয়ে

এক বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিন বছরে তার সরকার কি কি কাজ করেছে জাতির সামনে তা তুলে ধরেন তিনি। এ সময় ইমরান খান বলেন, আফগান জনগণ কাপুরুষ নন। তারা

অত্যন্ত সাহসী। আফগানদের মতো অন্য কোনো দেশ স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেনি। রাশিয়ার ‘বি’রুদ্ধে ‘যু’দ্ধে’ তাদের ১০ লাখ মানুষ প্রাণ উৎসর্গ করেছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন এক্সপ্রেস ট্রিবিউন। রাজধানী ইসলামাবাদে কনভেনশন সেন্টারে ইমরান খানের এই

অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। এতে তিনি প্রতিটি মন্ত্রণালয় এবং বিভাগে কিভাবে কাজ হয়েছে তার বর্ণনা দেন তার ‘নয়া পাকিস্তান’ দৃ’ষ্টিভঙ্গির ভিত্তিতে। তিনি এদিন আফগানিস্তানে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন।

তালেবানরা যখন অভিযান পরিচালনা করে, তখন আফগানিস্তানের হাতে তিন লাখ সেনা সদস্য ছিল, ছিল আকাশপথেও সা’পোর্ট। তা সত্ত্বেও আফগানিস্তানের সেনাবাহিনী তালেবানদের বিরু’দ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেনি। কারণ, তারা চায় নি একটি দু’র্নী’তিবাজ সরকারের পক্ষে

লড়াই করতে। এ সময় তিনি তা’লেবানদের অধীনে আফগানিস্তানে একটি শান্তিপূর্ণ সরকার প্রতিষ্ঠায় আন্তর্জাতিক স’ম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান। সবার অংশগ্রহণে সরকার, নারীর অধিকার নিশ্চিত করা এবং সবার জন্য তালেবানদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার প্রশংসা

করেন ইমরান খান। তিনি নিজের স’রকারের তিন বছর সম্পর্কে বলেন, গত তিনটি বছর ছিল অত্যন্ত কঠিন। আমরা যখন ক্ষমতায় আসি তখন অর্থনীতি ছিল ধ্বং’সের দ্বারপ্রান্তে। ২০০০ কোটি ড’লারের ঋণের বোঝা তখন

আমাদের কাঁধে এসে পড়ে উ’ত্তরাধিকার সূত্রে। এদিন তিনি পাকিস্তানকে আর্থিক সহায়তা দেয়ার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাত, চীন ও সৌদি আরবের প্রশংসা করেন। বলেন, এসব ব’ন্ধুপ্রতীম দেশ সহায়তা না করলে পাকিস্তানে এক করুণ অবস্থা বিরা’জ করতো। তিনি

বলেন, তার সরকার ঋণের ২০০০ কোটি ডলার গত তিন বছরে কমিয়ে ১৮০ কোটি ডলারে নামিয়ে এনেছে। বি’রোধী রা’জনীতিকদের তিনি মাফিয়া হিসেবে আখ্যায়িত করেন। বলেন, তারা শুধু হতাশা ছড়িয়ে দেয়। দেশে

আইনের শাসন প্রতি’ষ্ঠিত হোক এটা তারা চায় না। ইমরান বলেন, তার সরকারের প্রধান লক্ষ্য হলো দেশ থেকে দু’র্নীতির শি’কড় উপড়ে ফেলা এবং প্রত্যেককে তার কর্মকা-ে’র জন্য জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *