বিশ্ব দরবারে রাণী নামে পরিচিত ছোট্ট গরুটি আর নেই

সাভারের আশুলিয়ায় গিনেসবুকে আবেদন করা শিকড় এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিেটেডের পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট গরু রানী মারা গেছে। বক্সার ভুট্টি জাতের এ খর্বাকৃতির গরুটির পেটে গ্যাস জমে মারা গেছে বলে জানিয়েছে উপজেলা পশু চিকিৎসকরা। খর্বাকৃতির গরুটির ওজন ছিল ২৬ কেজি আর উচ্চতা ২০ ইঞ্চি ও প্রস্থ ছিলো ২৭ ইঞ্চি। গরুটির

বয়স হয়েছিল ২ বছর। বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) বিকেলে সাভার প্রানী সম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালের উপসহকারী প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা (সম্প্রসারণ) আব্দুল মোতালিব বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন-আজ দুপুর দেড় টার দিকে সাভারের আশুলিয়ার শিকড় এগ্রো ফার্মের একটি গরু, যার নাম রানী। কিছু দিন আগে গিনেজ বুকে নাম লেখানোর জন্য আবেদন করেছিল ফার্ম কতৃপক্ষ। কিন্তু গরুটি গতকাল হঠাৎ করে অসুস্থ হয়। গরুটির পেট ফোলা ছিল। এই অবস্থায় তারা চিকিৎসা দেন। তাদের ব্যক্তিগত একজন

ডাক্তার রয়েছে তিনি গতকাল থেকে চিকিৎসা করছিলেন। কিন্তু কোন উন্নতি না হওয়ায় গরুটি আমাদের কাছে নিয়ে আসেন। এখানে আনার পরে আমাদের ভেটেরিনারি সার্জন, এখানে আরও যারা ছিল তারা চিকিৎসা দেন। এর পরেও গরুটির কোন উন্নতি হয় নি। পরে দুটার দিকে গরুটি মারা যায়।

ফার্মটির ব্যক্তিগত পশু চিকিৎসক আতিকুজ্জামান জুয়েল জানান, গতকাল ‘রানী’ অসুস্থ হয়ে পড়ে। কাল থেকেই রানীর চিকিৎসা চলছিল। কিন্তু অবস্থার কোন উন্নতি না হওয়ায় সকালে তাকে সাভারের প্রানী সম্পদ দফতর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালে নেওয়া হয়। এখানেও চিকিৎসা চলাকালীন সময় দুপুর দুইটার দিকে গরুটি মারা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রায় ১ বছর আগে গরুটি নওগা জেলা থেকে গরুটি সংগ্রহ করেছিলেন ফার্ম কতৃপক্ষ। গিনেজ বুকে নাম লেখানোর জন্য গত ২ জুলাই গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন ফার্ম কতৃপক্ষ। এর পরই গণমাধ্যম ব্যাপকভাবে প্রচার করলে বিশ্ব দরবারে রানী পরিচয় লাভ করে।

সাভারের আশুলিয়ায় গিনেসবুকে আবেদন করা শিকড় এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিেটেডের পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট গরু রানী মারা গেছে। বক্সার ভুট্টি জাতের এ খর্বাকৃতির গরুটির পেটে গ্যাস জমে মারা গেছে বলে জানিয়েছে উপজেলা পশু চিকিৎসকরা। খর্বাকৃতির গরুটির ওজন ছিল ২৬ কেজি আর উচ্চতা ২০ ইঞ্চি ও প্রস্থ ছিলো ২৭ ইঞ্চি। গরুটির

বয়স হয়েছিল ২ বছর। বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) বিকেলে সাভার প্রানী সম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালের উপসহকারী প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা (সম্প্রসারণ) আব্দুল মোতালিব বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন-আজ দুপুর দেড় টার দিকে সাভারের আশুলিয়ার শিকড় এগ্রো ফার্মের একটি গরু, যার নাম রানী। কিছু দিন আগে গিনেজ বুকে নাম লেখানোর জন্য আবেদন করেছিল ফার্ম কতৃপক্ষ। কিন্তু গরুটি গতকাল হঠাৎ করে অসুস্থ হয়। গরুটির পেট ফোলা ছিল। এই অবস্থায় তারা চিকিৎসা দেন। তাদের ব্যক্তিগত একজন

ডাক্তার রয়েছে তিনি গতকাল থেকে চিকিৎসা করছিলেন। কিন্তু কোন উন্নতি না হওয়ায় গরুটি আমাদের কাছে নিয়ে আসেন। এখানে আনার পরে আমাদের ভেটেরিনারি সার্জন, এখানে আরও যারা ছিল তারা চিকিৎসা দেন। এর পরেও গরুটির কোন উন্নতি হয় নি। পরে দুটার দিকে গরুটি মারা যায়।

ফার্মটির ব্যক্তিগত পশু চিকিৎসক আতিকুজ্জামান জুয়েল জানান, গতকাল ‘রানী’ অসুস্থ হয়ে পড়ে। কাল থেকেই রানীর চিকিৎসা চলছিল। কিন্তু অবস্থার কোন উন্নতি না হওয়ায় সকালে তাকে সাভারের প্রানী সম্পদ দফতর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালে নেওয়া হয়। এখানেও চিকিৎসা চলাকালীন সময় দুপুর দুইটার দিকে গরুটি মারা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রায় ১ বছর আগে গরুটি নওগা জেলা থেকে গরুটি সংগ্রহ করেছিলেন ফার্ম কতৃপক্ষ। গিনেজ বুকে নাম লেখানোর জন্য গত ২ জুলাই গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন ফার্ম কতৃপক্ষ। এর পরই গণমাধ্যম ব্যাপকভাবে প্রচার করলে বিশ্ব দরবারে রানী পরিচয় লাভ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *