‘আমাকে ফাঁসানো হয়েছে, আপনারা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছেন’ আদালত প্রাঙ্গণে পরীমনির চিৎকার

আমাকে মিথ্যা মামলায় ইচ্ছা করে ফাঁসানো হয়েছে, আর মিডিয়া তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছে, শুনানি শেষে আদালত থেকে বের হওয়ার সময় চিৎকার করে কথাগুলো বলেন চিত্রনায়িকা পরী মনি।

মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) তার বিরুদ্ধে বনানী থানায় দায়ের করা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলার শুনানি হয়। সুষ্ঠু তদন্তের জন্য আলোচিত চিত্রনায়িকা পরী মনিকে আরও দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এসময় তিনি আরও বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে দায়ের করা সব মামলাই মিথ্যা। সাংবাদিক ভাইয়েরা আপনারা তদন্ত করেন।’

এদিন দুপুর ১২ টার দিকে তাদের আদালতে হাজির হয়। পরে মাদক মামলাটির সুষ্ঠু তদন্তের জন্য ফের পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্তে নিয়োজিত সংস্থা সিআইডি।রাষ্ট্রপক্ষ এসময় রিমান্ডের জোর দাবি জানান। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী রিমান্ডের বিরোধিতা করে জামিন আবেদন করেন। পরে উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাসের আদালদ পরীমনি ও তার সহযোগীর দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ড শুনানি চলাকালে কাঠগড়ায় দাঁড়িয় পরীমনিকে কাঁদতে দেখা যায়। এ সময় পরীমনির আইনজীবী মজিবুর রহমান বলেন, ‘একজন নায়িকা ১২২ ঘণ্টা এক পোশাকে রয়েছেন। তিনি তো একজন নায়িকা। তার তো একটা লাইফস্টাইল রয়েছে।’

এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আব্দুল্লাহ আবু বলেন, ‌‘পরীমনির কাপড় চেঞ্জ না করা একটা রাজনীতি। এখানে সবাই কাপড় চেঞ্জ করেছেন। তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে কাপড় চেঞ্জ করেননি।’

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘তাকে (পরীমনি) কাপড় দেয়া হয়েছে। তিনি এখানে আসার আগে এ কাপড় পড়েছেন। এর আগে তিনি অন্য কাপড় (ট্রি-শাট) পড়েছিলেন।’

বনানী থানায় পরী মনি ও তার সহযোগী আশরাফুল ইসলাম দীপুর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮- এর ৩৬ (১) এর সারণি ২৪(খ)/৩৬ (১) এর সারণি ১০ (ক)/৪২(১)/৪১ ধারায় র‍্যাব বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদের আদালত মাদক মামলার শুনানি শেষে পরী মনি, রাজ ও তাদের দুই সহযোগীর প্রত্যেককে চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৪ আগস্ট বিকেলে ঢাকাই চলচ্চিত্রের এ নায়িকার বনানীর বাসা চারদিক ঘিরে ফেলে প্রায় চার ঘণ্টা ভেতরে তল্লাশি শেষে পরী মনিসহ ৩ জনকে আটক করা হয়। এ সময় তার বাসা থেকে বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিপুল পরিমাণ মদ, এলএসডি উদ্ধার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যে একই রাতে বনানীর ৭ নম্বর রোডে পরীমনির বন্ধু রাজের বাসায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাব। এ সময় তার বাসা থেকেও বিদেশি মদ উদ্ধার হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *