শেষ বিচারের দিনে হাউজে কাউসার থেকে বঞ্চিত হবেন যারা

এক ভ’য়ংকর দিন থেকে বাঁচতে উম্মতকে তাগিদ দিয়েছেন নবীজি (সা.)। পবিত্র কোরআনের একাধিক আয়াতে ওই দিনের ভয়াবহ চিত্র এঁকেছেন আল্লাহ

তায়ালা। এক আয়াতে বলেছেন, সেদিন মানুষকে মনে হবে মাতাল। শিশু হয়ে যাবে বৃ”দ্ধ। ভয়ে গর্ভবর্তীর গর্ভপাত হয়ে যাবে। সেদিন যারা আল্লাহ এবং রাসুল

(সা.) এর প্রি”য়পাত্র হিসেবে দিনযাপন করবে, তাদের কোনো ভয় নেই। সূর্য নেমে আসবে মাথার কাছে। যারা পরহেজগারি জীবনযাপন করবে, সেদিন তারা রাসুল (সা.) এর হাতে হাউজে কাউসারের এক পাত্র পানি

পান করবে। এতে করে জান্নাতে যাও’য়ার আগে তাদের আর তৃষ্ণা জাগবে না। তবে হাদিস শরিফের বর্ণনা থেকে জানা যায়, একশ্রেণির মানুষ হাউজে কাউসার থেকে বঞ্চিত হবে। তাদের সম্পর্কে সা’বধানবাণী উচ্চারণ

করেছেন নবীজি (সা.)। মু”সনাদে আহমাদ, সুনানে তিরমিজি ও নাসায়ি শরিফে হযরত কাব ইবনে উজরা (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসুল (সা.) বলেছেন,

আমি তোমাদের সা’বধান করছি, খুব মনোযোগ দিয়ে শুনো! আমার পর তোমরা এমন অনেক অত্যাচারী শাসকের দেখা পাবে। যারা সে শাসকের দরবারে যাবে,

তাদের অ’ত্যাচারকে ‘প্রতিবাদের বদলে সমর্থন করবে এবং তাদের জুলুমে সাহায্য করবে- এরা যত আমলদারই হোকনা কেনো, তারা আমার উম্মত নয়, আমিও তাদের জন্য সুপারিশ করব না। কে’য়ামতের দিন, এমন ব্যক্তি

আমার হাউজে কাউ’সারের সামনেও আসতে পারবে না, পানিও পান করার সৌভা’গ্য হবে না। মুসনাদে আহমাদ, হাদিস নম্বর ১৮২৬; তিরমিজি, হাদিস নম্বর, ৬০৯ ও ২১৩৫৬০। জাবের বিন আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত,

রাসুল (সা.) বলেছেন, আমার পর খুব শী’ঘ্রই কিছু অত্যাচারী শাসক আসবে। যারা তাদের সাহায্য করবে এবং জুলুম দেখে নীরব থাকবে, তারা আমার উম্মত

নয়। হাশরের মাঠে আমি তাদের হাউজে কাউসার থেকে তাড়িয়ে দেবো। সুনানে নাসায়ি, হাদিস নম্বর ১৬১; সহি ইবনে হিব্বান, হাদিস নম্বর ২৪৮।

Post navigation

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *