মেডিকেল কলেজে ভর্তি করিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ

ঠাকুরগাঁওয়ে মেডিকেল কলেজে ভর্তি করিয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে বাদল মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
বুধবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও শহরের হোটেল সালাম ইন্টারন্যাশনালের একটি কক্ষ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে সকালে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ধারায় ওই তরুণী বাদী হয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় বাদল মিয়াকে আসামি করা হয়। ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতারকৃত বাদল ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল থানার হাটসিরা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত বাদল মিয়া ২০০৪ সালে ফায়ার সার্ভিসে ড্রাইভার পদে চাকরিতে যোগদান করেন। এরপর থেকেই তিনি বিভিন্ন মানুষকে চাকরি দেয়ার নাম করে টাকা আত্মসাৎ করে আসছিলেন। এ কারণ তাকে বাধ্যতামূলক অবসর দিয়েছে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ।

চাকরির সুবাদে মামলার বাদীর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মেডিকেল কলেজে ভর্তি করিয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ও বিয়ের আশ্বাস দিয়ে বাদীকে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। কৌশলে ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন। এরপর তরুণী বিয়ের জন্য চাপ দিলে আপত্তিকর ভিডিও, ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার হুমকি দেন। বাদল ভুক্তভোগীর কাছ থেকে ৬টি ফাঁকা চেকের পাতা স্বাক্ষর করে নেন।

ভুক্তভোগী জানান, গত ১২ জুলাই বাদল মোবাইল ফোনে তাকে হুমকি দেন যে তার সঙ্গে দেখা না করলে তিনি ছবি, ভিডিও ও কথোপকথন ভাইরাল করে দেবেন। পরে ভয়ে তিনি শহরের হোটেল সালাম ইন্টারন্যাশনালে দেখা করেন। এ সময় বাদল মিয়া জোর করে তাকে সেখানে নিয়ে ধর্ষণ করেন।

এ বিষয়ে সদর থানা পুলিশের ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে বাদল মিয়া এসব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তাকে আদালতের মাধ্যমে ঠাকুরগাঁও জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *