বন্ধুত্বের প্রমান আবারো দিলো চীন সরকার!

ঢাকায় নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বলেছেন, তার দেশে বিপুল চাহিদা থাকার পরেও বন্ধুত্বের কারণে বাংলাদেশকে করোনা টিকার দেয়া হয়েছে। আজ বুধবার এক ভার্চুয়াল আলোচনায় অংশ নিয়ে

এ কথা বলেন তিনি। এদিন যৌথভাবে এর আয়োজন করে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) ও বাংলাদেশ-চায়না চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিসিসিসিআই)। এতে বেইজিংয়ে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুব উজ জামানও বক্তব্য রাখেন।

আন্তর্জাতিক বাজারে টিকার সরবরাহ খুব সীমিত উল্লেখ করে চীনা রাষ্ট্রদূত বলেন, তার পরেও সিনোফার্মের ৫ লাখ টিকা ঢাকাকে উপহার দেয়া হয়েছে। আসার অপেক্ষায় রয়েছে সিনোভ্যাকের উপহারের আরো ৬ লাখ টিকা।

টিকার প্রকিউরমেন্ট নিয়ে অপেক্ষা থাকার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, টিকা যৌথভাবে উৎপাদনের জন্য ঢাকা-বেইজিংয়ের আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে, যা আশাব্যঞ্জক।দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বহুদিনের মন্তব্য করে লি জিমিং বলেন,

গত ৪৫ বছর ধরে উচ্চপর্যায়ের লেনদেনে সুষম গতি রয়েছে। ক্রমাগত গভীর হচ্ছে অর্থনীতি, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ খাতের সহায়তা। বাণিজ্য বাড়াতে শুল্কমুক্ত সুবিধার নানা দিক তুলে ধরে তিনি বলেন, গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারবে এফটিএ-ও। এ জন্য আরো বেশি কাজ করতে হবে ঢাকাকে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন, মূল প্রবন্ধ তুলে ধরেন পিআরআই’র গবেষণা পরিচালক ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক।

এ ছাড়া আরো বক্তব্য রাখেন বিসিসিসিআই সভাপতি গাজী গোলাম মর্তুজা, ইআরএফ সভাপতি শারমীন রিনভী, ইআরএফ সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশিদুল ইসলাম, বিসিসিসিআই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আল মামুন মৃধা প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *