এবার তালেবানের কাছে হেরে গেলেন বাইডেনও !

আফগানিস্তানে নিয়োজিত সৈন্য প্রত্যাহার প্রক্রিয়া শুরু করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো।আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সকল সৈন্য প্রত্যাহার করা হবে বলে জানিয়েছে বিবিসি।এটি বাস্তবায়িত হলে দীর্ঘ ২০ বছর পর আফগান যুদ্ধের পরিসমাপ্তি ঘটবে।

এর আগে এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘতম আফগান যুদ্ধ অবসানের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।তিনি বলেন, আমেরিকার দীর্ঘতম যুদ্ধের সমাপ্তি টানার সময় এসেছে। সময় এসেছে সেনাদের ঘরে ফিরিয়ে আনার।

তালেবানের সঙ্গে যুদ্ধ করার চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের আশু চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করাই এখন অগ্রাধিকার।২০০১ সালে হোয়াইট হাউসের ট্রিটি রুমে দাঁড়িয়ে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ আফগান যুদ্ধের ঘোষণা দিয়েছিলেন।তার প্রায় ২০ বছরের মাথায় এসে একই স্থানে দাঁড়িয়ে এই যুদ্ধের অবসানের ঘোষণা দেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

আল আকসায় নামাজ আদায়ের ঘোষণা দিলেন হিজবুল্লাহ মহাসচিব

মুসলমানদের প্রথম কিবলা আল-আকসা মসজিদে নামাজ আদায় করার আশা প্রকাশ করেছেন লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ।মঙ্গলবার রাতে আল-মানার টেলিভিশন প্রতিষ্ঠার ৩০তম বার্ষিকী উপলক্ষে দেওয়া বক্তৃতায় এ আশা প্রকাশ করেন তিনি।

হিজবুল্লাহ মহাসচিব বলেন, কুদস ও মসজিদুল আকসা গোটা মুসলিম উম্মাহর সম্পদ এবং বিশ্ব মুসলিম একদিন নির্ভয়ে একসঙ্গে এই মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারবে। মুসলিম বিশ্বের উচিত এই মসজিদকে ইহুদিবাদীদের দখলদারিত্ব থেকে মুক্ত করার সংগ্রামে ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়ানো।

এদিকে ফিলিস্তিনে ইসরাইলের আগ্রাসন ও গণহত্যা সমর্থন করে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন যে বক্তব্য দিয়েছেন, তার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস।

ব্লিঙ্কেন গত সোমবার এক বক্তব্যে ফিলিস্তিন জনগণের ওপর তেলআবিবের সাম্প্রতিক আগ্রাসনকে ‘আত্মরক্ষা’ বলে উল্লেখ করেন এবং ইহুদিবাদী ইসরাইলের প্রতি আমেরিকার পূর্ণ সমর্থন অব্যাহত থাকবে বলে ঘোষণা করেন।

এর প্রতিক্রিয়ায় হামাস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আমরা কুদস দখলদার ইসরাইল সরকারের প্রতি আমেরিকার সামরিক সমর্থন এবং তেলআবিবের হাতে অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র তুলে দেওয়ার মার্কিন নীতির তীব্র নিন্দা জানাই।

আমেরিকা এ সমর্থনের মাধ্যমে ফিলিস্তিনের নিরস্ত্র সাধারণ জনগণকে হত্যার অপরাধে সমান অংশীদারে পরিণত হয়েছে।গত ১০ থেকে ২১ মে পর্যন্ত অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইহুদিবাদী ইসরাইলের পাশবিক হামলায় ৬৯ শিশু, ৩৯ নারী ও ১৭ বৃদ্ধসহ ২৭০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

মার্কিন সমর্থনে চালানো এ হামলায় আহত হন আরও ১৯১০ ফিলিস্তিনি নাগরিক। এই ১১ দিনে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ ইসরাইলি হামলার নিন্দা জানাতে ও হামলা বন্ধ করতে তিনবার বৈঠকে বসলেও আমেরিকার বিরোধিতার কারণে তেলআবিবের বিরুদ্ধে কোনো প্রস্তাব পাস করা সম্ভব হয়নি।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *