ভয়ানক পরমাণু বোমার দ্বারপ্রান্তে ইরান সরকার? যে কারণে পশ্চিমাদের আতঙ্ক !

ইরান পরমাণু বোমা তৈরির দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে বলে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেনের বক্তব্য বিশ্ব মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়েছে। তিনি বলেছেন, ‌যদি এখনই রাশ টেনে ধরা না যায়, তবে ‘কয়েক সপ্তাহের মধ্যে’ তেহরান পারমাণবিক বোমা বানিয়ে ফেলতে পারে’।

একই ধরনের সতর্কবার্তা দিয়েছেন জাতিসংঘের ইন্টারন্যাশনাল অ্যাটোমিক অ্যানার্জি এজেন্সি (আইএইএ)। সংস্থার মহাসচিব রাফায়েল মারিয়ানো গ্রোসি অভিযোগ করে বলেছেন, ইরান তার পরমাণু কর্মসূচির নজরদারির ব্যাপারে আইএইএকে কোনো সহযোগিতা করছে না। এমনকি সংস্থার কোনো প্রশ্নেরও জবাব দিচ্ছে না।

তবে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইএইএ’র মহাসচিবের হুঁশিয়ারি উড়িয়ে দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। তেহরানের বিরুদ্ধে কোনো অ্যাকশনে যাবে না বলে জানিয়েছে তারা। পরমাণু চুক্তি সচলকরণকেই সবার জন্য মঙ্গল বলে মনে করছে।

পশ্চিমাদের ভয়ের কারণ

যুক্তরাষ্ট্রকে পরমাণু চুক্তিতে ফেরাতে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর একটি আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। গত ২ জুন পঞ্চম দফার আলোচনার পরও কোনো ধরনের সমাধান মেলেনি। এখন ষষ্ঠ দফার আলোচনার

অপেক্ষা করছে উভয়পক্ষ। আগামী বৃহস্পতিবার ফের বৈঠক বসার কথা রয়েছে। এর মধ্যেই গায়ের ওপর নিঃশ্বাস ফেলছে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। ভোটে জিতে কট্টর কেউ প্রেসিডেন্ট হয়ে এলে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা।

এমন পরিস্থিতিতে সোমবার মার্কিন কংগ্রেসে আইনপ্রণেতাদের উদ্দেশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তিতে ইরান ফিরে আসবে কি না তা এখনো স্পষ্ট নয়। ইরানের পরমাণু কর্মসূচি জারি রয়েছে। ইরান এখন একটি পরমাণু অস্ত্র তৈরি থেকে কয়েক মাস দূরে। যদি কর্মসূচিটি এভাবে চলতে থাকে, তাহলে শিগগিরই তারা কয়েক সপ্তাহের দূরে চলে আসবে।’

ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচি

গত এপ্রিলে নাতাঞ্জ পরমাণু কেন্দ্রে সফলভাবে ৬০ শতাংশ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ শুরু করে ইরান। চলতি বছরের ফেব্র“য়ারিতে, ইরানের শীর্ষ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি পার্লামেন্টে এক

ভাষণে ৬০ শতাংশ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের ঘোষণা দেন। ভাষণে খামেনি বলেন, ‘আমরা পরমাণু অস্ত্র বানানোর জন্য ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করছি না, যদি আমরা অস্ত্র বানাতে চাই তবে কেউ আমাদের রুখতেও পারবে না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *