রমজানের মধ্যে আবারও সৌদি বিমানবন্দরে ভয়াবহ ড্রোন হামলা!

ইয়েমেনের হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলন এবং তাদের সমর্থিত সামরিক বাহিনী সৌদি আরবের জেদ্দা বন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়েছে। শনিবার লোহিত সাগরের জেদ্দা বন্দরকে লক্ষ্য করে ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা এই হামলা চালায়।সৌদি প্রতিরক্ষা

মন্ত্রণালয় তাদের টুইটারে জানিয়েছে, সৌদি বিমান প্রতিরক্ষা ইউনিট একটি এয়ার টার্গেট প্রতিহত ও ধ্বংস করেছে।হুথি বিদ্রোহীরা এর আগে গত বুধবার হামলা চালিয়েছিল সৌদি আরবের কিং খালিদ বিমানঘাঁটিতে। ওই হামলায় ইয়েমেনে তৈরি কাসেফ টুকে ড্রোন ব্যবহার করা হয়।সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ইয়েমেনের হুথি আন্দোলন ও তাদের

সমর্থিত সেনারা সৌদি আরবের বিরুদ্ধে পাল্টা ও প্রতিশোধমূলক হামলা জোরদার করেছে। তারা সৌদি আরবের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় আসির প্রদেশের একটি বিমানঘাঁটিতে এবং বিশ্বের সর্ববৃহৎ তেল স্থাপনায আরামকোর ওপরও নতুন করে ড্রোন হামলা চালিয়েছে।

যে বেড়াজালে আটকে গেলেন মামুনুলের ২ স্ত্রী

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক থাকবে তবে ভাগ থাকবে না সম্পদে। ধারণ করা যাবে না সন্তান, থাকবে তালাকের অধিকার। এমন পাঁচ কঠিন শর্তের বেড়াজালে আটকে গিয়েছিল মামুনুল হকের কথিত দুই স্ত্রী ঝর্ণা আর জান্নাতুলের জীবন। চুক্তিভিত্তিক এসব বিয়েকে অদ্ভুত বলার পাশাপাশি দেশের প্রচলিত আইনেরও পরিপন্থী বলে দাবি করেছে পুলিশ।

২০১৮ সালে বিয়ে বিচ্ছেদের পর জান্নাত আরা ঝর্ণাকে ফুঁসলিয়ে ঢাকায় নিয়ে আসেন মামুনল হক। প্রথমে পরিচিতদের পরে ভাড়া বাসায় রাখা হয় তাকে। মামুনুলের ভাষ্য, মানবিক দিক বিবেচনায় ঝর্ণাকে চুক্তিভিত্তিক বিয়ে করেন তিনি।

একই ঘটনা ঘটে কথিত তৃতীয় স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসের সঙ্গেও। বেশকিছু কঠিন শর্ত দিয়ে তাকেও বিয়ে করার কথা স্বীকার করেছেন পুলিশের কাছে। মামুনুল হকের চুক্তিভিত্তিক দুই বিয়ের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

কথিত দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্ত্রীকে বিয়ের জন্য যেসব শর্তারোপ করা হয়েছিল তার মধ্যে রয়েছে, ওই নারীরা স্ত্রী হিসেবে থাকবেন, তবে মর্যাদা পাবেন না। স্বামী- স্ত্রীর সর্ম্পক থাকবে তবে ভাগ পাবেন না সম্পদের। সন্তান ধারণ করা যাবে না, প্রত্যাশা করা যাবে না স্থায়ী দাম্পত্য জীবনের। কারও কাছে স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিতে পারবেন না, থাকবে তালাকের অধিকার।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, মেলামেশা করতে পারবে, তবে স্ত্রীর মর্যাদা পাবে না। সম্পদের অধিকার সে পাবে না। একই সঙ্গে সন্তান ধারণ করতে পারবে না। এ ধরনের বেশ কিছু শর্ত চুক্তির মধ্যে আছে। চুক্তিগুলো অদ্ভুত। এগুলো বাংলাদেশের আইনের পরিপন্থী।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কাবিননামা একটি আইনি দলিল। মুসলিম আইনে বিয়ের রেজিস্ট্রেশন না করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

প্রসঙ্গত, হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ জান্নাত আরা ঝর্ণা মামলা করেছেন। মামলার এজাহারে তিনি উল্লেখ করেছেন চাঞ্চল্যকর সব তথ্য।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *