রাশিয়ার সাথে চরম উত্তেজনার মধ্যেই তুরস্কে গেলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট

রাশিয়ার সাথে উ’ত্তেজনার মধ্যেই তু’রস্ক সফরে গেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ’লদিমির জেলেনস্কি। একই সাথে তিনি তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানের সাথে বৈঠক করেছেন। রুশপন্থি ‘গেরিলাদের’ নিয়ন্ত্রণে থাকা

দনবাস এলাকা নিয়ে রাশিয়া ও ই’উক্রেনের মধ্যে যখন মারাত্মক সামরিক উ’ত্তেজনা চলছে তখন তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরে জে’লেনস্কি এবং এ’রদোগানের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো। ইউক্রেনের পূর্ব সীমান্তের কাছে রাশিয়া সামরিক

উ”পস্থিতি “জো’রদার করছে। এছাড়া কিয়েভকে পূর্ণাঙ্গ যু’দ্ধের হুঁ”শিয়ারি দিয়েছে মস্কো। ইস্তাম্বুল বৈঠকে এরদোগান এবং জেলেনস্কি “শুল্কমুক্ত বাণিজ্য, পর্যটন ও ক্রী’ড়া সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করেন। দুই প্রে’সিডেন্টের

বৈঠকের পর মন্ত্রীদের উ’পস্থিত বেশ কয়েকটি চুক্তি সই হয়। রাশিয়া এবং ই’উক্রেনের মধ্যে যখন সামরিক উত্তেজনা চলছে তখন তু’রস্কের নিয়’ন্ত্রণে থাকা বস’ফরাস প্রণালী ব্যবহার করে দুটি মার্কিন যু’দ্ধজাহাজ কৃষ্ণ সাগরে

পৌঁছেছে। তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্র’ণালয় জানিয়েছে, আগামী ৪ মে পর্যন্ত কৃ’ষ্ণসাগরে মার্কিন যু’দ্ধ’জাহাজ দুটি অবস্থান করবে। এদিকে শুক্রবার (৯ এপ্রিল) রাতে রাশিয়ার প্রেসি’ডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তু’রস্কের প্রেসিডেন্ট

এরদোগানকে ফোন করেন এবং ই’উক্রেন সংকট ও কৃষ্ণসাগরে আমেরিকার যু’দ্ধ’জাহাজের উপস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। টেলিফোন আলাপে রুশ প্রেসিডেন্টকে এরদোগান আ’শ্বস্ত করেন, ইউ’ক্রেনের সঙ্গে সহযোগিতার

অর্থ এই নয় যে, আঙ্কারা মস্কোর বি”রু’দ্ধে অবস্থান নিয়েছে। প’র্যবেক্ষকরা মনে করছেন, কোনো পক্ষ না নিয়ে তুরস্ক এ অ’ঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠাকারী হিসেবে ভূমিকা পালনের চেষ্টা করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *