এবার তৃতীয় বিয়ের কথা জানালেন মামুনুল হক!

বি’তর্ক যেন পিছু ছাড়ছে না হেফাজতে ই’সলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকের। নারায়ণগঞ্জে এক না’রীসহ অবরু’দ্ধ হওয়ার পর থেকে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে। যা এখনও চলছে।

এবার সেই আলোচনা-সমালোচনার আগুনে ঘি ঢাললেন মামুনুল হক নিজেই। নারায়ণগঞ্জে রিসোর্টের ঘ’টনার পর থেকেই সঙ্গে থাকা না’রীকে দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করে আসা মাওলানা মামুনুল হক এবার করেছেন তৃতীয় বিয়ের দা’বি!

এক বছর আগে গাজীপুরের কাপাসিয়ার বাসিন্দা এক না’রীকে তিনি বিয়ে করেন বলে ওই না’রীর ভাইকে জানান মামুনুল। বিষয়টি নিয়ে ওই না’রীর ভাই শাজাহান সাজু সংবাদ মাধ্যমের সাথে কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘শনিবার (১০ এপ্রিল) মোহাম্ম’দপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসায় ডেকে নিয়ে মামুনুল হক আমার বোনকে বিয়ে করার কথা জানান। এ সংক্রান্ত একটি স্ট্যাম্প দেখিয়েছেন তিনি। তবে এটি কাবিননামা নয়।’

বিষয়টি নিয়ে মামুনুল হকের স’ঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তিনি গ’ণমাধ্যমের সাথে কোনো কথা বলেননি। মোবাইলে ক্ষুদেবার্তা পাঠানো হলেও তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

আ’ইনশৃঙ্খলা বা’হিনীর একটি সূত্র জানায়, মামুনুল হক যে না’রীকে তৃতীয় স্ত্রী হিসেবে দা’বি করছেন তিনি এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে মাস্টার্স করেছেন। ২০১৩ সালে যখন তিনি ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন, তখন তাদের মধ্যে পরিচয় হয়।

আড়াই বছর আগে ওই না’রীর বিবাহ বি’চ্ছেদ হয়। এরপর ওই না’রীকে একটি মহিলা মাদ্রাসায় শিক্ষক হিসেবে চাকরি দেন মামুনুল হক। এরপর থেকেই তাদের মধ্যে স’ম্পর্ক গ’ড়ে ওঠে।

বি’চ্ছেদের পর ওই না’রীকে কেরানীগঞ্জের একটি বাসায় রাখেন মামুনুল হক। সম্প্রতি রিসোর্টকাণ্ডের পর এই না’রীকে মামুনুল হক তার বড় বোনের বাসায় রেখেছেন।

এই না’রীকে এতদিন তারা প্রথম স্ত্রী ধারণা করেছিলেন। কিন্তু গত কয়েকদিনে মামুনুল হকের একাধিক ফোনালাপ ফাঁ’স ও ঘনিষ্ঠদের সঙ্গে কথা বলে গোয়ে’ন্দা কর্মকর্তারা তৃতীয় প্রে;মিকার বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন।

জানা গেছে, বিয়ের প্র’লোভন দেখিয়ে ওই না’রীর সঙ্গেও দীর্ঘদিন ধ’রে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন মামুনুল হক। ওই না’রীর ব্যবহৃত ইলেকট্রনিক ডিভাইস থেকে এ সংক্রান্ত অনেক ত’থ্য-উপাত্ত পাওয়া গেছে। ওই না’রী একটি মহিলা মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন।

অনুস’ন্ধানে জানা গেছে, যেখানে শিক্ষকতা করেন তার পাশেই একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন ওই না’রী। এই বাসাতেই মাওলানা মামুনুল মাঝেমধ্যেই যাতায়াত করতেন। ওই মাদ্রাসার প্রধান উপদেষ্টা হলেন মামুনুল হক।

গত ২৬ মার্চ থেকে মোদিবিরো’ধী আন্দোলনের মধ্যেই মাওলানা মামুনুল হক ওই না’রীর বাসায় গিয়ে একান্ত সময় কা’টিয়েছেন। ৪৯ সেকেন্ডের অডিওতে মামুনুল ওই না’রীকে বলেন, ‘হ্যালো আমি আসছি।’

উত্তরে ওই না’রী বলেন, ‘চলে আসছেন? গেট খোলা আছে।’ মামুনুল বলেন, ‘গেট খুলে আমাকে রিসিভ করার ব্যবস্থা করো। এছাড়া কেউ আছে নাকি দেখো আগে।’ ওই না’রী আচ্ছা বলে ফোনের লাইন কে’টে দেন। ওই বাসা থেকে চলে যাওয়ার পর মামুনুল হক ও ওই না’রীর কথোপপকথনের আরেকটি ফোনালাপও ফাঁ’স হয়েছে।

এদিকে, মামুনুল হকের দ্বিতীয় বিয়ের ঘ’টনা তার ব্যক্তিগত বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন সংগঠনটির মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী। এ বিষয়ে হেফাজতের কোনো বক্তব্য নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি।

রোববার (১১ এপ্রিল) চট্টগ্রামের দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় হেফাজতে ই’সলাম বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক বৈঠক শে’ষে গ’ণমাধ্যমের সামনে এমন মন্তব্য করেন বাবুনগরী। তিনি আরও বলেন, মামুনুল হকের দ্বিতীয় বিবাহ শরীয়তসম্মত। এটা নিয়ে আমাদের কোনো বক্তব্য নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *